মামলা তুলে নিতে স্ত্রীকে হত্যার হুমকি যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: ২:৪৩ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৩০, ২০২০

স্ত্রীর দায়ের করা নির্যাতন মামলায় গ্রেফতার যুবলীগ নেতা শাহ ফয়েজ উল্লাহ ফয়েজের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করেছে আদালত। ২৯ মার্চ রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালতে তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়া হয়। এর আগে ফয়েজ উল্লাহ ফয়েজের আইনজীবী একই আদালতে তার জামিন আবেদন করলে আদালত শুনানি শেষে তা নামঞ্জুর করে দেন।

আরোহী হাওলাদারের দায়ের করা নারী নির্যাতন মামলায় ২৮ মার্চ রাত সাড়ে নয়টায় শহরের জামতলা এলাকা থেকে ফয়েজ উল্লাহ ফয়েজকে গ্রেফতার করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। আরোহী হাওলাদার যুবলীগ নেতা ফয়েজ উল্লাহ ফয়েজের দ্বিতীয় স্ত্রী। গত বছর ২৫ ফেব্রুয়ারি তারা দুজন বিয়ে করেন। তাদের সংসারে ৩ মাস বয়সী আজওয়াদ ফয়েজ ফাইজান নামে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। শাহ ফয়েজ উল্লাহ ফয়েজ নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এবং ২০১০ সালে গাজীপুরে আততায়ীদের হাতে খুন হওয়া সন্ত্রাসী নুরুল আমিন মাকসুদের শ্যালক।

এদিকে আরোহী হাওলাদার অভিযোগ করেছেন, এদিন দুপুরে তার পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আদালতে ডেকে নিয়ে যায় গ্রেফতার ফয়েজের আত্মীয় স্বজনসহ তার বন্ধুরা। আদালত প্রাঙ্গনে তাকে আটকে রেখে জোর করে মামলা তুলে নিতে আপোসনামায় স্বাক্ষর করানোর চেষ্টা করেন স্বামী ফয়েজের পরিবারের লোকজনসহ বন্ধুবান্ধব। আপোস করে মামলা তুলে না নিলে তাকে হত্যা করবে বলে সন্ত্রাসীরা হুমকি দিয়েছে এমন অভিযোগ করেন তিনি। পরে পুলিশের জুরুরী পরিসেবা-৯৯৯ এ ফোন করে র‌্যাব ও পুলিশের সহযোগিতায় আদালত থেকে রক্ষা পেয়েছেন তিনি। পুলিশ তাকে নিরাপত্তা দিয়ে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে র‌্যাব-১১ এর মিডিয়া অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলেপ উদ্দিন জানান, আমরা ওই নারীর ফোন পেয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের টিম সেখানে যায়নি। আমরা কোর্ট পুলিশকে প্রটেকশন দিতে বলেছি। নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মোঃ আসাদুজ্জামান ফয়েজকে জেলহাজতে প্রেরণের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠাই। তবে তেমন কিছু পাইনি।

পরে ওই মহিলা (আরোহী) আমাদের সাহায্য চাইলে একজন সাব-ইন্সপেক্টর তাকে নিরাপত্তাজনিত সহায়তা দেন। আসামী ফয়েজের স্ত্রী আরোহী হাওলাদার এই পরিস্থিতিতে কোলের শিশু সন্তান ও বিধবা মাকে নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান। তিনি দাবি করেন, মায়ের বাড়িতে তিনি অবস্থান করলেও সেখানে নিরাপদ নন। যে কোন সময় তার বাড়িতে হামলা হতে পারে। মা এবং শিশু সন্তানকে নিয়ে তিনি নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত বলে জানান। দেশের এই পরিস্থিতির কারণে সংবাদ সম্মেলন করতে পারছেন না জানিয়ে প্রশাসনের কাছে নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়েছেন তিনি।